ঈদে অগ্রিম টিকিটের প্রথম দিনেই কমলাপুরে ভিড়

ঈদে অগ্রিম টিকিটের প্রথম দিনেই কমলাপুরে ভিড়

পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে আজ বুধবার সকাল থেকে ঢাকার কমলাপুর ও চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ১২ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে (টিকিট থাকা সাপেক্ষে) বিকেল ৫টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি করা হবে। ঈদ উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও অতিরিক্ত যাত্রী বহনে ১৪টি বিশেষ ট্রেন ও ১৫০টি যাত্রীবাহী বাড়তি বগি প্রস্তুত করা হয়েছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আজ ১৭ আগস্টের অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে। আগামীকাল ৯ আগস্ট ১৮ আগস্টের, ১০ আগস্ট ১৯ আগস্টের, ১১ আগস্ট ২০ আগস্টের ও ১২ আগস্ট ২১ আগস্টের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করা হবে। এছাড়া ১৫ আগস্ট ২৪ আগস্টের, ১৬ আগস্ট ২৫ আগস্টের, ১৭ আগস্ট ২৬ আগস্টের, ১৮ আগস্ট ২৭ আগস্টের ও ১৯ আগস্ট ২৮ আগস্টের ফিরতি টিকিট দেয়া হবে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে ২৬টি ও চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে ১০টি কাউন্টার থেকে একযোগে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। নারী ও প্রতিবন্ধীদের জন্য আলাদা আলাদা টিকিট কাউন্টার রাখা হয়েছে।

প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে (টিকিট থাকা সাপেক্ষে) বিকাল ৫টা পর্যন্ত টিকিট বিক্রি করা হবে। ঈদ উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও অতিরিক্ত যাত্রী বহনে সাত জোড়া ( ১৪টি ট্রেন) বিশেষ ট্রেন ও ১৫০টি যাত্রীবাহী বাড়তি বগি প্রস্তুত করা হচ্ছে রেলওয়ে পাহাড়তলী ও সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বাড়তি বগি প্রস্তুত করতে এরইমধ্যে পাহাড়তলী ও সৈয়দপুর ওয়ার্কশপে প্রায় ২ হাজার শ্রমিক কাজ করছেন। নির্ধারিত সময়ের পরও এসব শ্রমিক ওভারটাইম করছেন। এছাড়া টিকিট কালোবাজারি ঠেকাতে ও যাত্রী নিরাপত্তায় রাজধানীর কমলাপুর-বিমানবন্দর, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা ও সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনসহ গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনগুলোতে আরও সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হচ্ছে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী জানান, ঈদকে সামনে রেখে পুরো স্টেশন নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হচ্ছে। আজ (বুধবার) সকাল ৮টা থেকে ৫ দিনব্যাপী অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ২৬টি কাউন্টার থেকে একযোগে ৬৫ শতাংশ টিকিট বিক্রি করা হবে। বাকি টিকিট ভিআইপি কোটা ও ই-টিকিটে বিক্রি করা হবে।

রেলওয়ে মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেন বলেন, এবারও ঈদ উপলক্ষে মাঠ পর্যায়ের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যাত্রীসেবা ও অতিরিক্ত যাত্রীবহন নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করা হচ্ছে। ছোট-বড় রেলওয়ে স্টেশনগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে। টিকিট কালোবাজারি রোধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক বলেছেন, ঈদকে সামনে রেখে রেলওয়েতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। যাত্রীসেবা বৃদ্ধি ও অতিরিক্ত যাত্রীবহনে ৭ জোড়া বিশেষ ট্রেন ও প্রায় ১৬০টি বগি সংযোগ করা হচ্ছে।